আনোয়ার হোসেন বাদল

আনোয়ার হোসেন বাদল, কবি ও কথাসাহিত্যিক। ১৯৬৫ সালের ০১ মে পটুয়াখালী জেলার পায়রা তীরবর্তী রাজগঞ্জ গ্রামে তার জন্ম। পৈত্রিক জমিজমাসহ গ্রামটি নদীতে বিলীন হয়ে গেলে শৈশবেই কাঁধে তুলে নেন বাবার সংসার।
জীবনযুদ্ধে সামরিক বেসামরিক নানাবিধ পেশায় কাজ করেন তিনি। পেটের তাগিদেই ঘুরে বেড়ান জনপদ থেকে জনপদে। সঙ্গত কারণেই নানান শ্রেণি-পেশার মানুষের সাথে মিশে সংগ্রহ করেন বিচিত্র সব অভিজ্ঞতা। পড়াশোনার পাশাপাশি লেখালেখির সাথে জড়িয়ে যান শৈশবেই।
মাত্র বাইশ বছর বয়সেই বিয়ে। একটি ভবঘুরে যাপনের পরও স্ত্রী সুলতানার গভীর ভালোবাসায় গড়ে ওঠে সুন্দর এক পারিবারিক জীবন। প্রগতিশীল ও মেধাবী দুই কন্যা উচ্চশিক্ষা নিয়ে কর্মজীবী। স্কুলশিক্ষিকা স্ত্রী এবং একমাত্র কনিষ্ঠ ছেলেকে নিয়ে বর্তমানে নিজ জেলায় বসবাস করছেন। লিখে চলেছেন দু’হাতে, কাজ করছেন একটি কিন্ডারগার্টেন স্কুলে।
এক জীবনের অনিয়মিত লেখালেখিতে তার প্রকাশিত গ্রন্থসংখ্যা মোট বারোÑ
১. নির্বাসিত বিপ্লবী (কাব্যগ্রন্থ)
২. অপেক্ষার প্রহর (কাব্যগ্রন্থ)
৩. একান্তে কবি ও কবিতা (কাব্যগ্রন্থ)
৪. কফিনবন্দী কবিতা (কাব্যগ্রন্থ)
৫. কাকেদের উৎসবে গণতান্ত্রিক হট্টগোল (কাব্যগ্রন্থ)
৬. শত মঞ্জরী (যৌথ কাব্য)
৭. বিবর স্বপ্ন (গল্পগ্রন্থ)
৮. বাপজানের গল্প (উপন্যাস)
৯. নাটুয়া প্রণয় (উপন্যাস)
১০. অনার্য জীবন (উপন্যাস)
১১. কৃষ্ণপক্ষের আলো (উপন্যাস)
১২. দৃষ্টিপাত দ্বিতীয় গোলক (উপন্যাস)

-জাহাংগীর হোসাইন মানিক
সভাপতি, দখিনের কবিয়াল, পটুয়াখালী

আনোয়ার হোসেন বাদল

Showing all 3 results

Show:

ভারতে কয়েকদিন

Highlights:

ভূমিকা

বাংলাদেশের বিশিষ্ট কবি ও কথাসাহিত্যিক আনোয়ার হোসেন বাদল চিকিৎসার জন্যে কিছুদিন আগে দক্ষিণ ভারতের ভেলোর শহরে গিয়েছিলেন। সাথে ছিলেন তার আজীবন সহযাত্রী, সহযোদ্ধা আমাদের প্রিয় সুলতানা ভাবী। বাদল ভাই ভাবীর সাথে নানান জায়গার ছবি তুলছেন আর তাৎক্ষণিক অভিজ্ঞতা লিখে পোস্ট দিচ্ছেন। আমিও মজা করে কমেন্ট করে যাচ্ছি সেইসব পোস্টে। প্রথমদিকে সাদামাটা পোস্ট ভেবেই গভীরে তেমন ঢোকার চেষ্টা করিনি। কিন্তু সময় যতোই যেতে থাকে পোস্টগুলো আমাকে চুম্বকের মতো টানতে থাকে। একসময়ে অবস্থা এমন দাঁড়ায় যে বাদল ভাইয়ের ভ্রমণবৃত্তান্তের অপেক্ষায় থাকি, কখন তিনি পোস্ট দিবেন, কখন সেই আখ্যানগুলো পড়বো। অবস্থা যখন এমন পর্যায়ে একদিন বলেই ফেললাম যে লেখাগুলোকে মলাটবদ্ধ করলে একটি ভালো বই হতে পারে। উপযাচক হয়ে এটাও বললাম যে যদি কখনো লেখাগুলো মলাটবদ্ধ হয় আমিই লিখবো এর মুখবন্ধ।
বলেতো দিয়েছি কিন্তু তখন কি আর জানতাম যে এই গুরুদায়িত্ব আমার ঘাড়েই চাপবে! সেদিন হঠাৎই বাদল ভাইয়ের ফোন, ‘কমরেড, ভারতে কয়েকদিন নামের বইটি আসছে আগামী বইমেলায়। ভূমিকা কিন্তু আপনাকেই লিখতে হবে।’ আমিতো সপ্তম আসমান থেকে পড়লাম একেবারে জমিতে।
যাইহোক, সচরাচর ভ্রমণকাহিনী বলতে আমরা যা বুঝি আনোয়ার হোসেন বাদল এর ‘ভারতে কয়েকদিন’ সে অর্থে কিন্তু কোনো ভ্রমণকাহিনী নয়। বরং এটি হচ্ছে সাদা চোখে দেখা সাদামাটা অভিজ্ঞতার এক নির্মোহ বিবরণ, কিছু জানা কথা, কিছু অজানা তথ্যের প্রকাশ।
বইটি এমন সহজ-সরল ভাষায় লিখিত যে—পড়ার সময় মনে হতে পারে পাঠক বই পড়ছেন না বরং লেখকের সাথে সাথে ঘুরে বেড়াচ্ছেন ভারতের নানান শহর। নিজের চোখেই পাঠক দেখছেন ভারতের ইতিহাস-ঐতিহ্য, স্থাপনা আর বিচিত্র প্রকৃতি।
আলোচ্য বইটিতে পাঠকের পরিচয় ঘটবে ভারতের ঐতিহাসিক শহর কোলকাতা, তৃতীয় বৃহত্তম শহর দক্ষিণ ভারতের চেন্নাই আর ভেলোরের ইতিহাস-ঐতিহ্য, শিল্পসংস্কৃতি ও স্থাপত্যকর্মের সাথে।
বইটি বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে এক অমরকীর্তি হিসেবে স্বীকৃত হবে বলে আমার বিশ্বাস।

কবি হানিফ মোহাম্মদ
তালেপুর, কেরাণীগঞ্জ, ঢাকা।

ভারতে কয়েকদিন

$ 1.85 25% Off

কৃষ্ণপক্ষের আলো

Highlights:

শাহিনুর, যাত্রাদলের এক সুন্দরী নর্তকী। বিধবা এ মেয়েটি ভিন্ন জাতের এক গানওয়ালার প্রেমে পড়লে ধর্ম ও সমাজ থেকে ছিটকে পড়ে। তার নাচ দেখতে এসে প্রেমে পড়ে যায় কিশোর বদি। শাহিনুরও এই কিশোরের প্রেমে হারিয়ে ফেলে জীবনের খেই। একসময় ভেঙে যায় ‘দি মাঝি অপেরা’। হারিয়ে যায় শাহিনুর। পর্দার আড়ালে থেকে এই নর্তকী তার প্রেমিকার প্রতিষ্ঠা পেতে অবদান রাখে। দীর্ঘ তেরো বছর পর জীবনের মঞ্চে আবার শাহিনুরের আবির্ভাব।
‘কৃষ্ণপক্ষের আলো’ নদী তীরবর্তী প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর এক অসাধারণ আলেখ্য। ঔপন্যাসিক আশ্চর্য কুশলতায় উঠিয়ে এনেছেন আবহমান বাঙলার অন্ত্যজ শ্রেণির শিল্প, সাহিত্য, ধর্ম, রাজনীতি ও সমাজ বাস্তবতা। সুনিপুণভাবে চিত্রিত হয়েছে বাঙালি জাতির মহান অর্জন মুক্তিযুদ্ধের প্রাপ্তি অপ্রাপ্তির সূক্ষ্ম দিকসমূহ। ধর্মান্ধতা, সাম্প্রদায়িকতা, পুরুষতান্ত্রিকতার নগ্ন থাবা লেখকের ক্ষুরধার তীর্যক আঁচড়ে অতি চমৎকাররূপে বাঙময় হয়ে উঠেছে।
বিয়োগাত্মক এ গল্পে কেন্দ্রীয় চরিত্র শাহিনুর পতিত শ্রেণির এক বঞ্চিতা নারী। গল্পকার তার মুনসিয়ানা দিয়ে বাস্তবসম্মতভাবে পতিত এ নারীকে পাঠকের কাছে উপস্থাপন করেন মহীয়সী রূপে।
শিল্পের সব ধারায় কাজ করলেও আনোয়ার হোসেন বাদল মূলত এক শক্তিমান কবি ও কথাশিল্পী। তার প্রকাশিত প্রত্যেকটি উপন্যাস নিঃসন্দেহে শিল্পগুণসমৃদ্ধ এবং সুখপাঠ্য। কৃষ্ণপক্ষের আলো বাংলাসাহিত্যে এক অমূল্য সম্পদ হয়ে থাকবে প্রত্যাশা রইলো।

সৈয়দ মাজহারুল পারভেজ
বহুমাত্রিক লেখক ও সাহিত্যজন

কৃষ্ণপক্ষের আলো

$ 1.84 40% Off
Scroll To Top
Close
Close
Shop
Sidebar
0 Wishlist
0 Cart
Close

My Cart

Shopping cart is empty!

Continue Shopping