স্বাতী চৌধুরী

স্বাতী চৌধুরী
জন্ম ৬ নভেম্বর ১৯৬৮। সুনামগঞ্জ জেলার মির্জাপুর গ্রামে মায়ের পিত্রালয়ে। পড়াশোনা চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে বাংলা ভাষা ও সাহিত‍্যে
এম এ। কবিতা দিয়ে লেখালেখি শুরু করলেও গদ‍্য লেখাতেই স্বাচ্ছন্দ‍্যবোধ করেন। এ পযর্ন্ত প্রকাশিত গ্রন্থ সংখ‍্যা চার। তার মধ‍্যে তিনটি গল্পগ্রন্থ – গেরস্থের কন‍্যাবন্দী রাক্ষসপুরে (শ্রাবণ প্রকাশনী ২০০২) , সরোজিনীর সংগ্রাম ও একাত্তুরের গল্প- (সাহিত্য প্রকাশ ২০০৫ ) ও উদ্বাস্তু ( প্রকাশ পাবলিকেশন্স ২০২০ ) প্রকশিত উপন‍্যাস- বৃহন্নলা বাসের কাল (রিদম প্রকাশনী ২০১০)। গল্প উপন‍্যাস ছাড়াও নারী অধিকার নিয়ে স্থানীয় ও জাতীয় পত্রিকায় নিবন্ধ লিখে থাকেন। স্বাতী চৌধুরী সাহিত‍্যের পাশাপাশি সংগীতের অনুরাগী। তিনি নারী আন্দোলনের একজন সক্রিয় ও স্বেচ্ছাসেবি কর্মী হিসেবে দীর্ঘদিন ধরে কাজ করে আসছেন। বতর্মানে তিনি বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক এবং কেন্দ্রীয় কমিটির সদস‍্য। ব‍্যাক্তিগত জীবনে তিনি বিবাহিত এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শহরে বসবাস করছেন।

ফেসবুক- https://www.facebook.com/sathi.chowdhury.7

স্বাতী চৌধুরী

Showing the single result

Show:

করোনা ভাইরাস ও অন্যান্য জীবাণু- স্বাতী চৌধুরী

Highlights:

গল্পগ্রন্থের নাম-করোনা ভাইরাস ও অন্যান্য জীবাণু। এই নামকরণ বলে দেয় আমরা কত রকক জীবাণুর সাথে বসবাস করছি! করোনা-জীবাণুর তান্ডব তো সাম্প্রতিক! জীবন ঘনিষ্ঠ নাকি জীবন-অন্বিষ্ট গল্পকার স্বাতী চৌধুরী! দুটোই সমান প্রাসঙ্গিক; চাইলে তৃতীয় কোনো অভিধা আবিষ্কারও সম্ভব। দৃষ্টি থাকলেই সব দেখা যায় না, যদি না যুক্ত হয় মেধা-প্রজ্ঞার মিশেল। তৃতীয় চোখ তথা অন্তর্দৃষ্টিও জরুরি। স্বাতীর ত্রিনয়ন প্রখর– গেঁথে যেতে পারেন মানুষের প্রত্যক্ষ ও অপ্রত্যক্ষ কাহিনি। মানবিকতার আখ্যান রচনার কুশল ও চাতুর্যে সংবেদী পাঠককে চমকে উঠতে হয় ক্ষণে ক্ষণে। গল্পকার স্বদেশ-সমকাল ও সমাজ-বাস্তবতার অগ্রসর দর্শক। তার ভাষ্যে ঈগলের শ্যেনদৃষ্টি যেমনউচ্চকিত, ডানাভাঙা পাখির উড়ে আসা পালকও আন্দোলিত করে। লেখকের অন্তর্জমিন সততই ক্ষত-বিক্ষত– চৌচির। জাগতিক নানাবিধ রঙ্গ-তামাশায় ধ¦সে পড়ে তাঁর স্বপ্ন-প্রাচীর, উল্টেপাল্টে যায় মানসভূগোল। তাই বলে সেখানে ফুলের সৌরভ, নদীর কলতান, তৃণ কিংবা লতাগুল্মের কোলাহল থাকে না? অচ্যুত জীবনের কথাকার স্বাতী নিস্পৃহভাবে বুনে যান উদ্বাস্তু জীবনের গল্প, প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর টিকে থাকার রকমারি মকশো’র ইতিবৃত্ত

দুর্বলের উপর সবলের আগ্রাসী মনোভাব অন্ধকার-প্রাচীন। দাবিয়ে রাখার অপকৌশলের বিপরীতে সংকট মোকাবেলা করে লাঞ্ছিত-বঞ্চিত মানুষের ঘুরে দাঁড়ানোর প্রচেষ্টা লক্ষণীয়। জীবন-শিল্পীর গল্পে খিন্ন জীবনের মুক্তি-প্রচেষ্টা দ্যুতি ছড়ায়। চিনিয়ে দেন সর্বহারার শক্তি-সামর্থ্যরে জায়গা; অস্তিত্বের প্রশ্নে কীভাবে জ্বলে ওঠে দ্রোহের দাবানল! স্বাতী গল্প লেখেন নাকি সমাজতাত্ত্বিকের মতো গ্রাফ আঁকেন! গল্পের শরীরে ক্লেদাক্ত জীবনের নড়াচড়া না থাকলে সাংবাদিকের ‘অনুসন্ধানী প্রতিবেদন’ হিসেবেও চালিয়ে দেওয়া যেত অনায়াসে! প্রচার ও খ্যাতির ডামাডোলের বহু দূরে অবস্থান করেও মূর্ত করে চলেছেন অবাক বাংলার মানুষের মুখ ও মুখশ্রী। কয়েকটি রেখাচিত্রে স্কেচ এঁকে দেওয়া ‘শ্রী’ ও ‘বিশ্রী’র সামনে দাঁড়িয়ে পাঠক অস্বস্তি বোধ করে, পথ খোঁজে পালানোর! লেখকের ক্ষুরধার বয়ান চাবুক হয়ে তাড়া করে। শেষপর্যন্ত ‘অপরাধী’ পাঠক পথ খুঁজে পায় কি! এখানেই স্বাতী চৌধুরীর সার্থকতা, অনন্যতা।

শফিক হাসান
সাংবাদিক ও কথাসাহিত্যিক

করোনা ভাইরাস ও অন্যান্য জীবাণু

$ 3.18 25% Off
Scroll To Top
Close
Close
Shop
Sidebar
0 Wishlist
0 Cart
Close

My Cart

Shopping cart is empty!

Continue Shopping