আনোয়ার রশীদ সাগর

কবি, গল্পকার, ঔপন্যাসিক ও সাংবাদিক। জন্ম: ১২ জানুয়ারি ১৯৬৫, চুয়াডাঙ্গা জেলার আলমডাঙ্গা উপজেলার বড় বোয়ালিয়া গ্রামে।
শিক্ষাগত যোগ্যতা: এমএসএস, এমএড
মোহা. আনোয়ারুল ইসলাম নামে হারদী মীর শামসুদ্দিন আহাম্মদ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক হিসেবে কর্মরত আছেন।
স্ত্রী: একজন গৃহিণী। তিনি দুই সন্তানের জনক।
পুরস্কার: নুরুল হক সাহিত্য পুরস্কার-২০১০।

আনোয়ার রশীদ সাগর

Showing all 2 results

Show:

স্বপ্ন জলে জ্যোৎস্না

Highlights:

মানুষের জীবন তো গল্পময়। গল্প ছাড়া জীবন হয় না। কেউ সে গল্প অপরকে শুনিয়ে তৃপ্তি পায়। কেউ নিজের মধ্যে গল্প পুষে রেখে জীবনকে ভোগ করে। কোনো একজনকে গল্প শুনাতে ইচ্ছে ছিল। সে গল্পের মধ্যে ডুব দেওয়া আর হয়নি। সে গল্পটা সামনাসামনি শুনাতেও পারিনি ।
তবে শুরুটা করেছিলাম গল্প শোনানোর জন্য, সেই শুরুটা নেশাতে পরিণত হয়ে গেছে। সেই কোনো একজন তো চোখের আড়ালে থাকে, মনের আড়াল হয়নি। তাই গল্প শুনাই আড়ালে-আবডালে- অন্তরালে।
গল্পের কথা বলার কারণ, আমি আসলে গল্পই লিখি। লিখতে লিখতে গল্পটি উপন্যাসে রূপ নেবে কিনা, সেটাও আমার জানা নেই। উপন্যাস তো বৃহৎ পরিসরের বিষয়। তাই এক্ষেত্রে আমি শিশুই। একটি কথা জোর দিয়েই বলতে পারি, অভিজ্ঞতার বাইরে আমি লিখতে পারি না। যেভাবেই হোক অভিজ্ঞতাটা তার জায়গা দখল করে নেয়। অর্থাৎ বলতে চাচ্ছি, বাস্তবতার বাইরে আমার লেখাতে কাল্পনিক বলে কিছু নেই। যদি আগেই বুঝতাম গল্প দিয়ে জীবন চলে তাহলে হয়তো লিখতাম ঘণ্টার পর ঘণ্টা, আষাঢ়ে বৃষ্টি পড়ার মত।
আমার গল্প প্রকাশ হবে, ছড়িয়ে যাবে, এমন ভাবনা মাথায় ছিল না। শিল্প-সাহিত্যের ত্রৈমাসিক ‘অনুপ্রাণন’ গল্প প্রকাশের মধ্য দিয়ে আমার চেতনাকে জাগ্রত করে দিয়েছে। গল্প লিখতে লিখতে তিনটি উপন্যাসও লিখে ফেলেছি।
“স্বপ্ন জলে জ্যোৎস্না” তৃতীয় উপন্যাস। পাণ্ডুলিপি পাঠিয়ে বিমুখ হইনি। বরং বুকভরা আনন্দ পেয়েছি। কৃতজ্ঞতা জানাই অনুপ্রাণন প্রকাশকের স্বত্বাধিকারী শ্রদ্ধেয় আবু এম ইউসুফ ভাইকে।
মফস্বলে থেকে লেখক হয়ে, বই প্রকাশ করা বড়ই কঠিন কাজ। অথচ সেই কঠিন কাজটা অনেক অনেক সহজ করে দিয়েছে অনুপ্রাণন প্রকাশন। আবারও অসংখ্য ধন্যবাদসহ ও কৃতজ্ঞতা জানাই অনুপ্রাণন প্রকাশনের সাথে জড়িতে সকলকে।

স্বপ্ন জলে জ্যোৎস্না

$ 1.41 25% Off

নাচো তুমি ঢেউ বুকে

5 ★
5 ★
2 Ratings
5 ★
2
4 ★
0
3 ★
0
2 ★
0
1 ★
0
Highlights:

।। লেখকের কথা।।

জীবনের শুরু বা শেষ বলে কিছু নেই। জন্মের আগে জীবন থাকে, সেটা বাবা-মা অথবা প্রেমিক-প্রেমিকার। আবার মৃত্যুর পরও জীবন থাকে, সন্তানদের অথবা নিজের কৃতকর্মের। জীবন সর্বদা চলমান। সুখ-দুঃখ, হাসি-কান্না ও উত্থান-পতন নিয়েই জীবন চলতে থাকে। এরই খণ্ডচিত্র নিয়ে লেখক লিখে রাখে। তার সাথে জড়িয়ে থাকে সমাজের চারপাশের প্রকৃতি, যা চিত্রকল্প হয়ে ধরা দেয় লেখকের কলমে।
প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের সাথে লেখক সাদৃশ্য খোঁজে, কল্পনায় পাখা মেলে দেয়, আকাশে পাখি উড়ায়, আঁধারে জোনাকী আলোয় বিপ্লব খোঁজে, বন্যার ব্যাপক প্লাবনে দরিদ্রদের বা দুর্বলদের টিকে থাকার সাঁতার দেখে এবং অভিসারে জ্যোৎস্না আলোয় পরীর মন্থন এঁকে দেয়।
গল্পের বইটিতে দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চলের মানুষের জীবনের খণ্ড খণ্ড চিত্র রয়েছে, রয়েছে এক সময়ের আন্ডার ওয়ার্ল্ডের রক্তক্ষয়ের ছোট ছোট কাহিনী। তরুণ-তরুণীর
প্রেম-ভালোবাসার আবেগ এবং বেকারত্বের অভিশাপের জীবনঘনিষ্ঠতাও ফুটে উঠেছে। সব মিলিয়ে বাস্তব জীবন নিয়েই গল্পগুলো লেখা হয়েছে।
“নাচো তুমি ঢেউবুকে” আমার তৃতীয় গল্পগ্রন্থ।
লেখালেখি করা আর পাণ্ডুলিপি তৈরি করা এক বিষয় নয়। লেখার চেয়ে পাণ্ডুলিপি তৈরি করা কঠিন মনে করি। এরপরও বই প্রকাশ করার আকাক্সক্ষায় দৌড়াতে গিয়ে এগিয়ে এসেছে কবি কহন কুদ্দুস ও কাকন মাহমুদ। তাদের সার্বিক সহযোগিতার কারণে পাণ্ডুলিপি তৈরি হয়েছে এবং গল্পের বইটি আলোর মুখ দেখতে যাচ্ছে।
বইটি পাঠকের হাতে পৌঁছানোর পরই মূল্যায়ন হবে। সে দায়িত্ব পাঠকের হাতে ছেড়ে দিচ্ছি।
Ñলেখক

নাচো তুমি ঢেউবুকে

$ 2.12 25% Off
Scroll To Top
Close
Close
Shop
Sidebar
0 Wishlist
0 Cart
Close

My Cart

Shopping cart is empty!

Continue Shopping