Article (প্রবন্ধগ্রন্থ)

Article (প্রবন্ধগ্রন্থ)

(Showing 1 – 12 products of 49 products)

Show:
Filter

সাহিত্য প্রসঙ্গ – ভাস্কর চৌধুরী

Highlights:

এই পুস্তকে যেসব প্রবন্ধ/নিবন্ধ আছে সেগুলোকে তিন স্তরে ভাগ করা যায়।
প্রথম হচ্ছে হাসান আজিজুল হকের গল্পের ওপর আলোচনা। গল্পের আলোচনাকালে আমি আলোচনার জন্য গল্পকারের হালনাগাদ মতামত গ্রহণ করেছি। কখনও একমত হয়েছি, আবার দ্বিমত পোষণ করেছি।
দ্বিতীয়ত, কিছু লেখা রবীন্দ্রনাথ ও বিদ্যাপতিকে নিয়ে লিখেছি।
তৃতীয়ত, কিছু বিখ্যাত লেখকের সাথে মুক্ত আলোচনা আছে। লেখাগুলোর আকর্ষণ মূলত হাসান আজিজুল হকের বহুমাত্রিক গল্পের আলোচনায় লেখকদের সাথে গল্পে গল্পে উঠে আসা নতুন মাত্রা।

সব মিলিয়ে লেখাগুলো বহুমাত্রিক। ভালো লাগবে বলে আশা করি।

ভাস্কর চৌধুরী
ঢাকা।
৮.৫.২০২৪

Sahityo Prosongo by Vashkar Chowdhury

শিল্প-সাহিত্যের নিবিড় অনুসন্ধান ও পাঠ বিশ্লেষণ : নিভৃত ভাবনার জলযান – স্বপঞ্জয় চৌধুরী

Highlights:

কবি ও প্রাবন্ধিক স্বপঞ্জয় চৌধুরীর দ্বিতীয় প্রবন্ধের বই “শিল্প সাহিত্যের নিবিড় অনুসন্ধান ও পাঠ বিশ্লেষণ: নিভৃত ভাবনার জলযান” মূলত তাঁর দীর্ঘদিনের পাঠাভ্যাস ও চিন্তার প্রকৃষ্ট ফসল। এ গ্রন্থে তিনি মোট ২৪ টি নিবন্ধ সংযোজন করেছেন। যাতে তিনি আলোকপাত করার চেষ্টা করেছেন কবিতা, সাহিত্য, দর্শন, ও চলচ্চিত্রসহ শিল্পকলার বিভিন্ন মাধ্যমের দিকে। কবিতা ও কথাসাহিত্যের নন্দনতাত্তি¡ক ভেতরবাড়ির আনাচকানাচ পর্যবেক্ষণ করে তা তুলে ধরার পাশাপাশি তিনি চলচ্চিত্র ও লিটলম্যাগ নিয়েও প্রয়াস চালিয়েছেন তাঁর নিবন্ধের বইটিতে। বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ কবি সাহিত্যিকদের বিভিন্ন লেখাকে তিনি পাঠ পরবর্তী বিশ্লেষণের মাধ্যমে এক ভিন্ন শিল্পরূপে দাঁড় করিয়েছেন যা সত্যিই প্রশংসনীয়। গদ্যসাহিত্যের বিকাশমান ধারায় তাঁর এ গ্রন্থটি সিরিয়াস ও মনোযোগী পাঠকদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ স্থান পাবে বলে আশাকরি।
– আহমেদ শিপলু।
কবি ও নন্দনতাত্ত্বিক, সম্পাদক – ‘মগ্নপাঠ’

Shilpo sahityer Nibir Anusondhan O Path Bislation - Nibir Vabonar Jalzan - Swapanjoy Chowdhury

সুস্থ থাকতে ফিজিওথেরাপি – ডা: সুমনা পারভীন

Highlights:

আপনার বাসার এক কোনায় যেমন “একটা ফার্স্ট এইড বক্স “ রয়েছে যেটাকে ছোট-খাটো শারীরিক সমস্যায় ব্যবহার করে থাকেন। যেমন- সামান্য কেটে গেলে, পুরে গেলে, পেটে গ্যাস হলে, হালকা জ্বর কিংবা অন্য কোনো সাধারণ ছোট-খাটো শারীরিক সমস্যায়, যেটা দিয়ে আপনি নিজেই নিজের প্রাথমিক চিকিৎসা করে ফেলতে পারছেন এই ফার্স্ট এইড বক্সের সাহায্যে। তেমনি “সুস্থ থাকতে ফিজিওথেরাপি” বইটিও আপনার বাসার “ফার্স্ট এইড বক্স” এর মতোই সবার বাসায় রাখতে পারেন। কারণ বইটি পড়লে সহজেই জানতে পারবেন আপনার বিভিন্ন শারীরিক বাত-ব্যথার কারণ, করনীয় বা প্রতিরোধ সম্পর্কে এবং কখন আপনাকে ডাক্তারের কাছে যেতে হবে সেই সম্পর্কে। পাশাপাশি কিছু নিয়ম মেনে এবং এক্সারসাইজের মাধ্যমে আপনি নিজেই নিজের শারীরিক বাত-ব্যাথার প্রাথমিক চিকিৎসা করে ফেলতে পারেন। কারণ, আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞানের একটি অন্যতম ও গুরুত্বপূর্ণ শাখা হলো ফিজিওথেরাপি, যা বিভিন্ন ধরনের বাত-ব্যথা এবং প্যারালাইসিস এর সর্বোৎকৃষ্ট চিকিৎসা পদ্ধতি। অর্থাৎ মাসল, জয়েন্ট, টেন্ডন, লিগামেন্ট, বোনস এবং নার্ভজনিত বিভিন্ন ধরনের শারীরিক সমস্যায় খুব ভালো কাজ করে থাকে রোগীকে সারিয়ে তুলতে। কিন্তু অনেকেরই পরিস্কার ধারনা নেই ফিজিওথেরাপি চিকিৎসা সম্পর্কে। অর্থাৎ ফিজিওথেরাপি কি, ফিজিওথেরাপিস্টের যোগ্যতা কতটুকু, কোন কোন ক্ষেত্রে প্রযোজ্য ইত্যাদি ইত্যাদি। আমি যতটা সম্ভব সহজ ভাষায় উপস্থাপন করার চেষ্টা করেছি ফিজিওথেরাপি চিকিৎসার আদ্যোপান্ত সম্পর্কে। এছাড়া, বইটির দ্বিতীয় সংস্করণের বিশেষত্ব হলো, স্ট্রোকের চিকিৎসায় বাসায় করনীয় এক্সারসাইজগুলো ছবিসহ দেয়া রয়েছে। যেটা বেশির ভাগ রোগীর অভিভাবকেরাই জানতে চান যে স্ট্রোকের রোগীর চিকিৎসায় দীর্ঘমেয়াদী কোন কোন এক্সারসাইজগুলো বাসায় চালিয়ে যেতে হবে সেই সম্পর্কে। যদিও স্ট্রোকের রোগীর চিকিৎসায় হাত-পায়ের শক্তি ফিরিয়ে আনতে অবশ্যই একজন ফিজিওথেরাপিস্টের তত্ত্বাবধানে থাকতে হয়। তবে বাসায় কি ধরনের এক্সারসাইজগুলো চালিয়ে যাবেন সেই সম্পর্কে ছবিসহ অনেকটাই সহজভাবে সচ্ছ ধারণা দেয়ার চেষ্টা করেছি। আশা করছি বইটি বিভিন্ন শারীরিক বাত-ব্যথা ও প্যারালাইসিসে বাসায় করনীয় এবং চিকিৎসা সম্পর্কে অনেকটা স্পষ্ট ধারণা দেবে।

Shushtha Thaktey Physiotherapy by Dr. Sumona Parvin

শেকড়ের রবীন্দ্রনাথ ও বিবিধ – পীযুষ কান্তি বড়ুয়া

Highlights:

সময়ের চেয়ে বড় ও অনপেক্ষ সমালোচক পৃথিবীতে বিরল। যে কোন ব্যক্তি বা ঘটনাকে বর্তমানে বসে অবলোকনের চেয়ে কালান্তরে পর্যালোচনার প্রয়াসই উত্তম ও নির্মোহ। ঊনবিংশ শতাব্দীতে জন্ম নেওয়া রবীন্দ্রনাথকে একবিংশ শতাব্দীতে এসে পর্যালোচনা করলে যে নিরপেক্ষ নির্যাস পাওয়া যায় তাই-ই হলো সত্যিকারের রবীন্দ্্রনাথ। এর মাঝেই নিহিত আছে রবীন্দ্র-মাধুর্যের প্রকৃত পরিচয়। বাঙালির বাতিঘর রবীন্দ্রনাথের বড় পরিচয় কবি হিসেবে নয়, বরং দার্শনিক হিসেবে। রবীন্দ্রবাক্য সহজ বটে তবু অতল গভীর। রবীন্দ্রনাথের চর্মচক্ষুর চেয়ে অন্তর্চক্ষুর দার্শনিক ব্যাপ্তি অনেক বেশি। ব্যক্তি রবীন্দ্রনাথ কালের আলোয় আজও সমানভাবে প্রাসঙ্গিক। দার্শনিক রবীন্দ্রনাথ একজন কালের শিক্ষক। তাঁর সমবায় কৃষি এবং কৃষিব্যাংকের ভাবনা এনে দিয়েছে ব্রাত্যজনের মাঝে প্রগতির প্রবাহ। হাজারো বিরুদ্ধ-স্রোত ঠেলে রবীন্দ্রনাথ মনুষ্যত্বের জয়গান গেয়ে গেছেন জীবনের পথে। ব্যক্তি নয়, ব্যক্তির সুকর্মকে প্রাধান্য দিয়েই রবীন্দ্রনাথ ‘সোনার তরী’র স্বপ্ন দেখেছেন। কর্মের ফসলেই তিনি খুঁজে পেয়েছেন মানবজীবনের সার্থকতা।

SHEKARER RABINDRANATH O BIBIDHO - Pijush Kanti Barua

সাংবাদিকের কলম – মিলু শামস

Highlights:

মিলু শামসের নির্ভার গদ্যভাষার সঙ্গে পাঠককে নতুন করে পরিচয় করানোর কিছু নেই। বিষয়ের যুক্তিগ্রাহ্য বিশ্লেষনের সঙ্গে প্রকাশ ভঙ্গির সাবলীলতাকে তিনি এমনভাবে মিশিয়ে দেন যা পাঠককে এক নিশ্বাসে শেষ লাইন পর্যন্ত পড়ে যেতে বাধ্য করে। জীবন ও জগতকে দেখার তাঁর নিজস্ব দৃষ্টিভঙ্গির কারণে প্রতিটি লেখা হয়ে ওঠে স্বতন্ত্র। প্রখর ব্যক্তিত্বময় দৃঢ় একটি স্বর অণুরনিত হয় পাঠক মননে।
দৈনিক জনকণ্ঠে প্রকাশিত তাঁর নিয়মিত কলামের নির্বাচিত কিছু কলাম নিয়ে সাজানো হয়েছে এই বইয়ের লেখাগুলো।

Sangbadiker Kalam By Milu Shams

বাংলাদেশে বিশ্বাসঘাতকতা ও হত্যার রাজনীতি – মাহবুবুল আলম

Highlights:

১৯৭৫ থেকে ১৯৮১ এই সময়কালের মধ্যে সদ্যস্বাধীন বাংলাদেশে ইতিহাসে বিশ্বাসঘাতকতা ও হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়ে জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জেল হত্যাকাণ্ড, মেজর জেনারেল খালেদ মোশাররফ, কর্নেল তাহের, রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান, মেজর জেনারেল মঞ্জুর, এবং সেনাবাহিনীর অনেক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা নিহত হন। কিন্তু বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জেল হত্যাকাণ্ডের বিচার হলেও আজ পর্যন্ত অন্যান্য হত্যাকাণ্ডের বিচার হয়নি। সামরিক আদালতে রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের হত্যার জন্য প্রহসনের বিচারে সামরিক বাহিনীর অনেক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে হত্যা করা হয়। যাকে আইনের দৃষ্টিতে কিছুতেই বিচার বলা যাবে না।
১৯৭৫ থেকে ১৯৮১ সকল রাজনৈতিক হত্যাকা নিয়ে একই মলাটে তেমন কোন গ্রন্থ রচিত হয়েছে বলে জানা নেই। স্বাধীনতা লাভের মাত্র ছয় বছরে যত রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ড সংগঠিত হয়েছে সে’সব হত্যাকাণ্ড নিয়ে মাহবুবুল আলম-এর লেখা বই “বাংলাদেশে বিশ্বাসঘাতকতা ও হত্যার রাজনীতি ১৯৭৫-১৯৮১”। গবেষণামূলক এই গ্রন্থটি উৎসুক পাঠক, গবেষক ও ইতিহাসের ছাত্রদের কাজে আসবে বলে আমাদের একান্ত বিশ্বাস। তাই আমাদের প্রকাশনী থেকে গ্রন্থটি প্রকাশে উদ্যোগী হয়েছি। গ্রন্থটি পাঠকপ্রিয় হলে লেখকের পাশাপাশি আমরাও আনন্দিত হবো।

Bangladeshey Biswasghatokata O Hattar Rajniniti By Mahbubul Alam

খেলাপি ঋণ : ক্ষমতাবলয় এবং উন্নয়ন প্রেক্ষিত – বাবলু রহমান

Highlights:

বাংলাদেশ ব্যাংক জানায়, ২০২৩ এর জানুয়ারি-মার্চ প্রান্তিকে খেলাপি ঋণ ১ লাখ ৩১ হাজার ৬২০ কোটি টাকা। বিবিসি’র খবর, ২০০৯ থেকে গত ১৩ বছরে খেলাপি বেড়েছে ৬ গুণ।
খেলাপি কমানোর দায়িত্ব ব্যাংকের শীর্ষ নির্বাহীদের নিতে হবে- এ বক্তব্য কেন্দ্রীয় ব্যাংক গভর্নরের। অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স-বাংলাদেশ (এবিবি) বলেছে- খেলাপি নিয়ন্ত্রণ একাকী সম্ভব নয়। তবে এবিবি’র সুপারিশ মত ব্যবস্থা নিলে নাকি ২ বছরে খেলাপি শূন্যে নামিয়ে আনা যাবে।
খেলাপিদের বিদেশ ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা বিল পাস। খেলাপিদের বিরুদ্ধে দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা, পিপলস ব্যাংক চেয়ারম্যান আটক। বেসিক ব্যাংক ঋণ কেলেঙ্কারি: ৫৮ মামলার আসামি চেয়ারম্যান শেখ আবদুল হাই বাচ্চুর বিদেশ যাত্রায় নিষেধাজ্ঞা চেয়ে দুদকের চিঠি।
২০২৩ এর ২৪ জানুয়ারি জাতীয় সংসদে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল জানান, দেশে ঋণখেলাপির সংখ্যা ৭,৮৬,০৬৫ জন। অর্থমন্ত্রী ২০২০ সালে সংসদে ৮,২৩৮ প্রতিষ্ঠানের খেলাপির তালিকা দেন। এই সংখ্যাগুলো বাড়ে বেশি, কমে খুবই সামান্য।
২০১৯ এর জুন পর্যন্ত খেলাপির অর্থে কী কী হতো? সিপিডি’র সমীক্ষায় এর জবাব পাওয়া গেছে। ১ লাখ ১২ হাজার ৪৩০ কোটি টাকায় পদ্মা সেতু সড়কে ব্যয়ের অঙ্কের সমান ৩টি সড়ক সেতু অথবা পদ্মা সেতু রেল লিংকের সমান আরও ৩টি রেল সেতু বা মাতারবাড়ীর মতো ৩টি বিদ্যুৎ প্রকল্প অথবা ঢাকা মেট্রোরেলের মতো ৫টি প্রকল্প বা দোহাজারী-রামু-কক্সবাজার এবং ঘুমধুমের মতো ৬টি রেলপথ কিংবা রামপালের মতো ৭টি বিদ্যুৎ প্রকল্প তৈরি করা যেতো।
তাই প্রশ্ন উঠছে, জনগণ ও রাষ্ট্রের এই বিপুল পরিমাণ খেলাপির টাকা বছরের পর বছর কেন অনাদায়ী পড়ে থাকবে?
বাংলাদেশের স্বাধীনতার মূল কান্ডারী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও আওয়ামী লীগ। এর দ্বিতীয় প্রজন্মের নেতা ও আলোর দিশারী বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তাঁর নেতৃত্বে ইতোমধ্যে পদ্মা সেতু, মেট্রোরেল, বঙ্গবন্ধু টানেলসহ অনেক দৃশ্যমান সাফল্যলাভ হয়েছে। মানুষের বিশ্বাস, দেশপ্রেমিক এই জাতীয় নেতার নির্মোহ রাজনৈতিক সিদ্ধান্তেই লাখ হাজার কোটি টাকার খেলাপি ঋণও পুনরুদ্ধার হবে। এবং দেশে শুরু হবে আরও মৌলিক সমস্যা নিরসন, উন্নয়ন ও কর্মসংস্থানের উৎসব।

Khelapi Rin : Khomotaboly Ebong Unnoyon Prekkhit

প্রবন্ধ সংগ্রহ- ২ – উদয় শংকর দূর্জয়

Highlights:

উজ্জ্বল বোতামের মত উজ্জ্বল উদয় শংকর দুর্জয়। পরিশ্রমী, বিনয়ী এবং উপকারী। তেরোটি চমৎকার উজ্জ্বল প্রবন্ধ দিয়ে সাজানো ওর বই – প্রবন্ধ সংগ্রহ-২। এই গ্রন্থের প্রথম প্রবন্ধ ‘বই সৃজনশীল মননের চিরকালীন সঙ্গী।’ সেখানে ও বলেছে বই কেন পড়বো, কবে থেকে পড়ছি, এবং কেন কেউ কেউ বই পড়েনা। এখানে আছে লেখক ও কবির কথা। তাদের নানা দিক। যেমন আছেন আবদুলরাজাক গুরনাহ, তেমনি আছেন মধ্য প্রাচ্যের দারবিশ। আছেন আবদুল মান্নান সৈয়দ এবং আমাদের ভালোবাসা সত্যজিত রায়। বই সম্পর্কে জে কে রোলিংএর মন্তব্য “বই পড়তে তোমার যদি ভালো না লাগে তাহলে বুঝতে হবে তুমি ঠিক বই পাওনি।” তার মানে বই পড়তে ভালোলাগা আমাদের রক্তপ্রবাহের ভেতর থাকে। থাকে মননে ও মস্তিষ্কে। দুর্জয়ের প্রবন্ধ সেই মনন ও মস্তিষ্কে অনু-রণন সৃষ্টি করার মতো। দুর্জয়ের বর্তমান বই সকলেরই ভালো লাগবে এই আমার বিশ্বাস। এ বই হবে আমাদের বন্ধু। ঠিক দীর্ঘদিন ধরে উদয় শংকর দুর্জয় যেমন এই বৃদ্ধার বন্ধু।

কথাসাহিত্যিক সালেহা চৌধুরী
লন্ডন

Probondho Songraho- 2 - প্রবন্ধ সংগ্রহ- ২

অনুধ্যানে নিবিড় পাঠ ও অন্যান্য – নাহার আলম

Highlights:

নাহার আলমের গদ্যভাস্কর্যের ভেতর মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়, শওকত আলী, আল মাহমুদ, হাসান আজিজুল হক, রিজিয়া রহমান, হুমায়ূন আহমেদ, হেলাল হাফিজ, আব্দুল মান্নান সৈয়দ এবং সৈয়দ মনজুরুল ইসলামের জীবন ও কর্মের যৌক্তিক বিশ্লেষণসহ কবিতার সেকাল-একাল, মৈমনসিংহ গীতিকা-বিধৃত লোকায়ত জীবন, মুক্তিযুদ্ধে নারীর অবদান ও ছোটোকাগজের সম্ভাবনা সম্পর্কিত বীক্ষা দ্যুতিময় হয়ে উঠেছে। মানিক বন্দ্যোপাধ্যায় ‘পুতুল নাচের ইতিকথা-য় গাওদিয়া তথা পূর্বতন বিক্রমপুরের গ্রামীণ জীবনপ্রবাহ ও নিসর্গের অন্তর্লীন রূপকে বর্ণময় করে তুলেছেন। নাহার আলম এ উপন্যাসের প্রধান চরিত্র শশীর প্রেম, মনস্তাত্ত্বিক টানাপোড়েন এবং বৃষ্টি-ডোবা মশক অধিকৃত পল্লি জীবনের জটিলতা ও গভীরতা উন্মোচনে প্রয়াসী হয়েছেন। শওকত আলীর রচনা বিশেষত তাঁর উপন্যাস ও গল্পে স্ফুরিত প্রাকৃতজনের দর্শন, ব্রাত্য জনগোষ্ঠীর অস্তিত্ব-সংকট, নরনারীর হিংস্রতা, মধ্যবিত্তশ্রেণির যাপনপ্রক্রিয়া, নৈঃসঙ্গ্যচেতনা ইত্যাদি বিষয়ে প্রাবন্ধিক আলোকপাত করেছেন। আল মাহমুদের বহুমুখী প্রতিভা সত্ত্বেও তাঁর কবিখ্যাতিকে প্রাবন্ধিক সমধিক গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করেছেন। তাঁর বিশ্লেষণে প্রতিভাত হয়েছে, হাসান আজিজুল হক চেতোমান সত্তা দিয়ে প্রান্তিক মানুষের জীবনচিত্র নিপুণভাবে অঙ্কন করেছেন। রিজিয়া রহমানের ছোটোগল্পের সামগ্রিক পর্যালোচনায় প্রাবন্ধিকের তন্নিবিষ্টতা উল্লেখ্য। দ্রোহ-প্রেম-বিরহের কবি হেলাল হাফিজের প্রতি প্রাবন্ধিক জ্ঞাপন করেছেন সহমর্মিতা। তিনি কবি ও লেখক হিসেবে আব্দুল মান্নান সৈয়দের বহুমাত্রিক প্রতিভার সমুজ্জ্বল পরিচয় তুলে ধরেছেন। সৈয়দ মনজুরুল ইসলামের ‘আজগুবি রাত’ উপন্যাসে নারীর অন্তরায়ণ, কাহিনি বিন্যাসের ক্ষেত্রে প্রতীক-রূপকল্পের ব্যবহার, বস্তুসত্যের সাথে পরাবাস্তবতার মিশ্রণ-কৌশলের ভেতর প্রাবন্ধিক আবিষ্কার করেছেন শিল্পকিরণ। পাঠকের চেতনায় নাহার আলমের অনুধ্যান প্রভাব ফেলবে বলে বিশ্বাস করি।

গৌরাঙ্গ মোহান্ত
কবি ও গবেষক

Anodyane Nibir Path O Anyanyo

PRACHIN BANGLAR PORAMATI-FALAKSHILPA O ANNANNO - প্রাচীন বাংলার পোড়ামাটি-ফলকশিল্প ও অন্যান্য

শামসুদ্‌দীন আবুল কালামের কথাসাহিত্য : জীবনবোধ ও শিল্পরূপ – জাহিদা মেহেরুননেসা

Highlights:

লেখকের কথা-

বাংলা সাহিত্যের প্রথম সারির কথাসাহিত্যিক হিসেবে ড. শামসুদ্‌দীন আবুল কালাম একটি বিশেষ স্থান অধিকার করে আছেন। তিনি আমার একমাত্র মামা, বিষয়টি আমার অহংকার, গর্ব এবং উত্তরাধিকারের। জন্ম থেকেই দেখেছি তার সাহিত্যকর্ম এবং ব্যক্তিজীবনের চরম বেদনাদায়ক অধ্যায় বাংলা সাহিত্যের অনুসন্ধিৎসু পাঠকের কাছে আগ্রহের বিষয় ছিল। মামা মারা যাবার পরে আমার মায়ের ইচ্ছায় আমি পিএইচ.ডি করার চিন্তা করি।আমার মা তার ভাইয়ের অত্যন্ত আদরের ছোটবোন ছিলেন। মামার সাহিত্যকর্ম এদেশের মানুষের কাছে উল্লেখযোগ্যভাবে আলোচিত না হলে মা খুব কষ্ট পেতেন এবং ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত  করতেন। এ দেশের বড় বড় পত্রিকার সাহিত্যপাতায়  প্রকাশিত বাংলা সাহিত্যের বড় বড় সমালোচক এবং গবেষকদের সমালোচনামূলক নিবন্ধ এবং গবেষণাগ্রন্থ তিনি পড়ে দেখতেন।  কেউ কেউ মামার নাম উল্লেখ না করলে তিনি সঙ্গে সঙ্গে নিজের ঘরে, চায়ের আসরে অথবা নিজ বন্ধুবান্ধবদের সঙ্গে এটা নিয়ে তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করতেন। আমি মায়ের সেই কষ্টটা বুঝতাম। একদিন তিনি আমাকে মামার কথাসাহিত্যের বিষয়ে গবেষণা করতে বললেন, যা আমার কাছে মা আদেশ করেছেন বলে মনে হয়েছে।

শামসুদদীন আবুল কালামের বিষয়ে সে সময় গবেষণা করা ছিল অসম্ভব প্রায়। কারণ লাইব্রেরীতে তার লেখা বই, বিভিন্ন সময়ে পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত  লেখা সংগ্রহ করা বেশ দুরূহ বিষয় ছিল। কেউ তার  বিষয়ে তেমন কোনো তথ্য দিতে পারতেন না যেহেতু  তিনি (শামসুদদীন আবুল কালাম)  প্রায় ৪০ বছর ধরে ইটালীর রোমে প্রবাসজীবন যাপন করেছেন। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি এবং গবেষণা করার শর্তসমূহ আমার কাছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের থেকে তুলনামূলকভাবে সহজ মনে হওয়াতে সেখানেই ভর্তি হয়ে কাজ শুরু করি। ইউনিভার্সিটি গ্রান্টস কমিশনের ৫০০০ টাকা হিসেবে মাসিক বৃত্তি বা অনুদান এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে পর্যায়ক্রমে তিন বছরের ছুটির অনুমোদন লাভ করি । প্রাতিষ্ঠানিকভাবে বাঙলা কলেজের বাংলা বিভাগ থেকে ২০০৬ এর মাঝামাঝি সময়ে বিমুক্ত হয়ে তখন থেকে কাজ শুরু করি। কিন্তু দুর্ভাগ্য আমার মা ২০০৮ এর জানুয়ারি মাসের ২৫ তারিখে হঠাৎ মারা যান। এতে আমার সমস্ত উৎসাহ উদ্দীপনা ধূলিসাৎ  হয়ে যায়।  এর মধ্যে ২০০৮ এ আমি প্রভাষক থেকে সহকারী অধ্যাপক পদে ইডেন কলেজে পদায়ণ লাভ করি, জয়েন করে ইউনিভার্সিটি ফেলোশিপের বৃত্তিসহ ছুটি ত্যাগ করে সেপ্টেম্বর মাসে জয়েন করে কর্মরত অবস্থায় পিএই্চ.ডির কাজটি সুসম্পন্ন  করার চেষ্টায় নিয়োজিত থাকি। ইতোমধ্যে ২৮ আগস্ট  মাস ২০১১সালে  আমার ছোট ভাই যাত্রাবাড়ী থেকে হারিয়ে যায়, যাকে আজও ফিরে পাইনি। ২০১৩র জানুয়ারি মাসের ১৫তারিখে ঢাকার উত্তরায়  আমার সর্বকনিষ্ঠ   ভাই আততায়ীদের উপর্যুপরি ছুরির আঘাতে মুমূর্ষু অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি হয় এবং সৌভাগ্যক্রমে  বেঁচে যায়।  এই সমস্ত দেখেশুনে আমার আর একটি ভাই মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ে। পারিবারিক এই বিষয়গুলি পিএইচ.ডির এই অভিসন্দর্ভ প্রকাশে আমাকে নিঃস্পৃহ করে তোলে। ১২ বছর পরে পারিবারিক রাহুগ্রস্ত অবস্থার সমাপ্তি হলে এবার আমার কর্মজীবনের সমাপ্তিকালে এই অভিসন্দর্ভটিকে আলোর মুখে আনার ইচ্ছে প্রকাশ করলে অনুপ্রাণনের কর্ণধার আবু মোহাম্মদ ইউসুফ ভাই সানন্দে গ্রন্থটি প্রকাশের ইচ্ছা প্রকাশ করেন।

শামসুদদীন আবুল কালামের কন্যা ক্যামেলিয়ার কাছে অসংখ্য অপ্রকাশিত পাণ্ডুলিপি আছে যা এখনও প্রকাশিত হয়নি। শামসুদদীন আবুল কালামের একমাত্র জামাতা জনাব এ বি মঞ্জুর রহিম ছিলেন বাংলাদেশ সরকারের পররাষ্ট্র সচিব এবং তৎকালীন সময়ের একজন রাষ্ট্রদূত। ২০০৫ এ তিনি জার্মানির রাষ্ট্রদূত হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এখন তিনি কানাডার ক্যালগারিতে অবস্থান করছেন।

শামসুদদীনের কথাসাহিত্য: জীবনবোধ ও শিল্পরূপ শিরোনামের অভিসন্দর্ভের জন্য ২০১১ সালে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় আমাকে ডক্টর অব ফিলজফি উপাধি প্রদান করে আমাকে সম্মানিত করেছে। আমার গবেষণা তত্ত্বাবধায়ক ছিলেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের আমার শ্রদ্ধেয় অধ্যাপক ড. সৌদা আখতার। পরীক্ষা পরিষদের সভাপতি এবং পরীক্ষক ছিলেন আমার পরম শ্রদ্ধেয় শিক্ষক ড. সৈয়দ আকরাম হোসেন। এ ছাড়াও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. শিপ্রা দস্তিদার ছিলেন আমার পরীক্ষক। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. দানীয়ুল হক স্যারের প্রতি আমার কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি, তিনি এ বিভাগে ভর্তি থেকে শুরু করে সব সময় গবেষণার অগ্রগতি বিষয়ে খোঁজখবর নিয়ে কাজটি সুসম্পন্ন করার অনুপ্রেরণা জুগিয়েছেন। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগারের সকল কর্মকর্তা এবং কর্মচারীদের সার্বিক সহযোগিতা বিশেষভাবে স্মরণ করার মত।

গবেষণার সময়ে আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় গ্রন্থাগার, ( বিশেষ অনুমতিক্রমে)। বাংলা একাডেমী, গুলশানের ইন্ডিয়ান লাইব্রেরী, ব্রিটিশ কাউন্সিল, আজিমপুর লাইব্রেরী এবং ইডেন কলেজের সমৃদ্ধ লাইব্রেরী ব্যবহার করেছি। অভিসন্দর্ভের সার্বিক মুদ্রণের দায়িত্ব পালন করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. সিরাজুল ইসলাম।

আমার স্বামী বীর মুক্তিযোদ্ধা শফিকুল ইসলাম মজনুর সহযোগিতা, সহনশীলতা এ কাজটি শেষ করতে বিশেষভাবে সহায়তা করেছে। আমার দুইজন সন্তান তাদের শিক্ষা জীবনের গুরুত্বপূর্ণ সময়ে আমার মনোযোগ থেকে বঞ্চিত হয়েছে। সেজন্য আমি আসলেই অনুতাপ করছি।

ব্যক্তিগত জীবনের নানা সমস্যা এবং সীমাবদ্ধতার পরেও  ড. শামসুদ্‌দীন আবুল কালামের কথাসাহিত্যের উপর এই গবেষণাকর্মকে আমার শ্রদ্ধেয় পরমগুরু অধ্যাপক ড. সৈয়দ আকরাম হোসেন স্যার মৌলিক এবং আঁকর গ্রন্থ হিসেবে মূল্যায়ণ করেছেন।এটা আমার পরিশ্রমের একটা পরিপূর্ণ স্বীকৃতি এবং সম্মান বলে আমি মনে করি।

বাংলা সাহিত্যের ছোটগল্পের ইতিহাসে শামসুদ্‌দীন আবুল কালামের গল্প একটি অসাধারণ উচ্চতায়  অবস্থান করে আছে, বিশেষ করে তার পথ জানা নাই গল্পটি যুগে যুগে এই দেশের সমাজবাস্তবতা এবং রাজনৈতিক চেতনার একটি উজ্জ্বল স্বাক্ষর যা বাংলা সাহিত্যের শিক্ষার্থীদের জানা প্রয়োজন । এই অভিসন্দর্ভ অনুসন্ধিৎসু শিক্ষার্থীদের সহায়তা করবে বলে আমি মনে করি।

শামসুদ্‌দীন আবুল কালামের কথাসাহিত্য : জীবনবোধ ও শিল্পরূপ - Shamsuddin Abul Kalamer Kothasahityo : Jibonbodh O Shilporup

প্রশিক্ষণ পরিচিতি – মোজাম্মেল হক নিয়োগী (চতুর্থ সংস্করণ, পঞ্চম মুদ্রণ)

Highlights:

প্রশিক্ষণ পরিচিতি:

প্রশিক্ষণ পরিচিতি বইটিকে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার আর প্রয়োজন নেই হয়তো। ইতোমধ্যে এই বইয়ের তৃতীয় সংস্করণ ও চতুর্থ মুদ্রণ শেষ হয়েছে। কিন্তু প্রায় পাঁচ বছর আগে চতুর্থ মুদ্রণ শেষ হলেও বিভিন্ন কারণে চতুর্থ সংস্করণ ও পঞ্চম মুদ্রণ দীর্ঘ সময় লেগে গেল।

বাংলাদেশে বাংলা ভাষায় প্রশিক্ষণ পরিচিত একমাত্র বই যেটি সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের প্রশিক্ষকগণ ১৯৯৮ সাল থেকে ব্যবহার করে আসছেন। আরও আনন্দের বিষয় যে, এটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে নন-ফরম্যাল এডুকেশন বিষয়ের জন্য পাঠ্য এবং কয়েকটি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে রেফারেন্স বই হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। দেশের প্রায় সবগুলো প্রশিক্ষণ একাডেমিতেও এই বইয়ের ব্যবহার ও অন্তর্ভুক্তি রয়েছে।

কী আছে এই বইয়ে?

প্রায় সাড়ে ছয় শত পৃষ্ঠার বইটিতে প্রশিক্ষণ সংশ্লিষ্ট ষোলোটি অধ্যায় রয়েছে। একজন প্রশিক্ষক কীভাবে নিজেকে তৈরি করবেন, কীভাবে দক্ষতা বাড়িয়ে শ্রেষ্ঠ প্রশিক্ষক হিসেবে নিজেকে গড়ে তুলবেন তার কলাকৌশল সম্পর্কে বিস্তারিতভাবে বর্ণনা রয়েছে। এই বইয়ে রয়েছে ৭৫টি প্রশিক্ষণ পদ্ধতিসহ বিভিন্ন কনসেপ্টের ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ। যেমন- প্রশিক্ষণ, ফ্যাসিলিটেশন, শিখন, শিক্ষা, প্রশিক্ষণ চাহিদা নিরূপণের কলাকৌশল, প্রশিক্ষণ ম্যানুয়াল/মডিউল প্রণয়নের তাত্ত্বিক ও ব্যাবহারিক ধারণা, যোগাযোগ, উপস্থাপন, প্রশিক্ষণ মূল্যায়নের তাত্ত্বিক ও ব্যাবহারিক ধারণা। প্রশিক্ষক কীভাবে একটি প্রশিক্ষণ কোর্স পরিচালনা করবেন এবং প্রশিক্ষণ কোর্সের পর প্রতিবেদন লেখার কলাকৌশলেরও বিশদ বর্ণনা এই বইয়ে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। সর্বশেষে রয়েছে ম্যানেজমেন্ট সম্পর্কিত একটি সমৃদ্ধ পরিভাষা।

প্রশিক্ষণ পরিচিতি - Proshikkhon Parichiti

1 2 3 4 5
Scroll To Top
Close
Close
Shop
Filters
Sale
0 Wishlist
0 Cart
Close

My Cart

Shopping cart is empty!

Continue Shopping